জরুরি নোটিশ:
যুগযুগান্তর পত্রিকার জন্য সারাদেশে জেলা ও উপজেলায় সংবাদ দাতা আবশ্যক।  মোবা: 01842268378 ইমেইল: nskibria2012@gmail.com
প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধির ঘোষণা শিগগিরই

প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধির ঘোষণা শিগগিরই

নিজস্ব প্রতিবেদক
ফাইল ফটো

প্রাথমিক শিক্ষকদের গ্রেড পরিবর্তনের প্রস্তাবনা চূড়ান্ত করেছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। সংশোধিত প্রস্তাবনায় প্রধান শিক্ষকদের দশম গ্রেড ও সহকারী শিক্ষকদের ১২তম গ্রেডে উন্নীত করার সুপারিশ করা হয়েছে। মঙ্গলবার এটি অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।
বিষয়টি নিশ্চিত করে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব আকরাম আল হোসেন জানান, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ও প্রধান শিক্ষকদের সম্মানজনক গ্রেডে অন্তর্ভুক্তির কার্যক্রম শুরু হয়েছে। শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা অনুযায়ী, শিক্ষকদের নতুন গ্রেডে উন্নীত করার প্রস্তাবনা তৈরি হয়েছে। এটি অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে এখন উভয় মন্ত্রণালয় সভা করে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে।

প্রধান শিক্ষক পদটি দ্বিতীয় শ্রেণির হলেও তারা বেতন পান ১১তম গ্রেডে। অথচ দ্বিতীয় শ্রেণির অন্য সব চাকরিজীবী দশম গ্রেডে বেতন পান। বিসিএস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ নন-ক্যাডার থেকে নিয়োগের সুপারিশপ্রাপ্তরা সবাই দশম গ্রেড বেতন পেলেও শুধু সরকারি প্রাথমিকের প্রধান শিক্ষকরা পাচ্ছেন ১১তম গ্রেডে।
অন্যদিকে প্রশিক্ষণবিহীন সহকারী শিক্ষকদের ১৫তম গ্রেডে ও প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সহকারী শিক্ষকরা বেতন পান ১৪তম গ্রেডে। ফলে প্রধান শিক্ষকদের সঙ্গে তাদের বেতনের পার্থক্য তিন ধাপ। এটি মেনে নিতে রাজি নন সহকারী শিক্ষকরা। তারা প্রধান শিক্ষকের এক ধাপ নিচে বেতন চান। এ নিয়ে একাধিকবার আন্দোলনও করেছেন সহকারী শিক্ষকরা।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের মধ্যে একাডেমিক শিক্ষাগত যোগ্যতার বেশ ব্যবধান রয়েছে। তাদের মধ্যে কেউ মাধ্যমিক পাস, কেউ উচ্চমাধ্যমিক, কেউ আবার স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পাসও রয়েছেন। চাকরির বিধি অনুযায়ী, স্নাতক পাসের নিচে থাকলে ১২তম গ্রেড দেয়া হয় না। তবে যেসব শিক্ষক স্নাতক পাস, তারা ১২তম গ্রেড পেয়ে থাকেন।

এ বিষয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব আকরাম আল হোসেন জানান, নিয়োগ বিধিমালায় সহকারী শিক্ষকদের যোগ্যতা হিসেবে স্নাতক পাস করা হয়েছে। সেই আলোকে আগামী নিয়োগ থেকে এটি বাস্তবায়ন হবে। শিক্ষকদের গ্রেড পরিবর্তন প্রস্তাবনাটি নতুন নিয়োগ বিধিমালার ভিত্তিতে তৈরি করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, আগে নিয়োগ পাওয়া বেশকিছু শিক্ষক এসএসসি ও এইচএসসি পাস। তাদের কেন গ্রেড দেয়া হবে, সে বিষয়ে অর্থ মন্ত্রণালয় সিদ্ধান্ত নেবে। তবে এটা চূড়ান্ত হওয়ার আগে উভয় মন্ত্রণালয়ের একাধিক বৈঠক হবে। আলোচনার মাধ্যমে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। শুধুমাত্র গ্র্যাজুয়েট সহকারী শিক্ষকদের ১২তম গ্রেড দিতে অর্থ মন্ত্রণালয় সম্মতি দিলে তা বাস্তবায়ন করা হবে বলেও মন্তব্য করেন সচিব।

যুগযুগান্তর পত্রিকা. নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 Jugjugantor24.com  
Design & Developed BY ThemesBazar.Com