জরুরি নোটিশ:
যুগযুগান্তর পত্রিকার জন্য সারাদেশে জেলা ও উপজেলায় সংবাদ দাতা আবশ্যক।  মোবা: 01842268378 ইমেইল: nskibria2012@gmail.com
হুমকি দিলেন ভাতিজাও ভাবি করছেন কষাকষি

হুমকি দিলেন ভাতিজাও ভাবি করছেন কষাকষি

নিজস্ব প্রতিবেদক:

জাতীয় পার্টির (জাপা) প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদের মৃত্যুতে রংপুর-৩ সংসদীয় আসন শূন্য ঘোষণা করা হয়েছে। এ আসনে এরশাদ পরিবারের চার সদস্য ও দলটির অন্তত তিন নেতা নির্বাচন করার আগ্রহ দেখিয়েছেন। এতে দলে চেয়ারম্যান জিএম কাদের সিদ্ধান্ত গ্রহণে বেকায়দায় পড়েছেন। জাপার সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদের সঙ্গে ঐকমত্যে পৌঁছাতে পারছেন না কাদের। এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন দলের একাধিক নেতা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই নেতাদের দেওয়া তথ্য মতে, রংপুর-৩ আসন জাপার হাই-মান্ডের হাতেই থাকার কথা। এ জন্য চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ায় সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। চমক হিসেবে দলের চেয়ারম্যান নিজেই এ আসনে প্রার্থী হতে পারেন। তিনি নিজে না হলে ওই আসনে তার ভাই আমেরিকা প্রবাসী ড. হুসেইন মুর্শেদ প্রার্থী হতে পারেন। এ ক্ষেত্রে জিএম কাদেরের লালমনিরহাট-৩ আসনে দেখা যেতে পারে অন্য কাউকে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জাপার একজন যুগ্ম মহাসচিব জানান, রংপুর-৩ আসনের মনোনয়ন নিয়ে বিরোধ থেকেই চেয়ারম্যান হিসেবে জিএম কাদেরকে অস্বীকার করে বিবৃতি দিয়েছিলেন রওশন এরশাদ। কাদের-রওশন বিভিন্ন ইস্যুতে নিজেদের মধ্যে দর কষাকষি করতেই এসব বিষয়গুলোকে অমীমাংসিত রাখতে চান।

দলটির ওই প্রেসিডিয়াম সদস্য আরও জানান, জিএম কাদেরকে দলের চেয়ারম্যান হিসেবে মানতে রওশন এরশাদের আপত্তি নেই। তবে তাকে বিরোধী দলীয় নেতা করতে হবে। তাই জিএম কাদের এ ইস্যু ঘিরে বাকিগুলো নিজের নিয়ন্ত্রণে রাখতে চান।

জানা গেছে, এ আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে রয়েছেন এরশাদের ছোটভাই মরহুম মোজাম্মেল হোসেন লালুর ছেলে সাবেক সাংসদ হোসেন মকবুল শাহরিয়ার আসিফ। তিনি এ আসনে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। তিনি দলীয় মনোনয়ন না পেলে বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ার হুমকিও দিয়েছেন। এ ক্ষেত্রে তিনি স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচন করবেন। এতে নিশ্চিত হারার শঙ্কায় পড়বে দলীয় প্রার্থী।

এ ছাড়া এরশাদ পরিবারের অন্যতম সদস্য হিসেবে মনোনয়ন প্রত্যাশী তার মামাতো ভাইয়ের ছেলে মেজর (অব.) খালেদ আখতার। তিনি দীর্ঘদিন চাচা এরশাদের একান্ত সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। মনোনয়ন প্রত্যাশী এরশাদের বোন সাবেক সংসদ সদস্য মেরিনা রহমানের মেয়ে মেহেজেবুন্নেছা রহমান টুম্পাও। তিনি জাতীয় পার্টির সাবেক মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলুর স্ত্রী।

জাতীয় পার্টি সূত্রে আরও জানা গেছে, রংপুর-৩ আসনে মনোনয়ন দৌড়ে রয়েছেন এরশাদ-রওশন দম্পতির সন্তান রাহগীর আল মাহি সাদ এরশাদ। আর এতেই ঘটেছে বিপত্তি। মা রওশন এরশাদ বাবার আসনে সাদকে মনোনয়ন দেওয়ার পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন।

জাতীয় পার্টির বিভিন্ন পর্যায়ের একাধিক নেতা জানিয়েছেন, রংপুর-৩ আসনে দলীয় মনোনয়নের অন্যতম দাবিদার জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য এস এম ফখর-উজ-জামান। তিনি দীর্ঘদিন জাতীয় পার্টির সঙ্গে আছেন এবং শিল্পপতি হওয়ার সুবাদে বিভিন্ন কর্মসূচিতে মোটা অঙ্কের অনুদান দিয়ে থাকেন। শিল্পপতি এস এম ফখর-উজ-জামান এরশাদের বাবা মকবুল হোসেন ট্রাস্টের অন্যতম ট্রাস্টি।

জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য আলমগীর সিকদার লোটন বলেন, ‘স্যারের (এরশাদ) আসনে কে মনোনয়ন পাবেন সে বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন পার্টির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের ও পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান বেগম রওশন এরশাদ। এ বিষয়ে আমাদের কোনো কিছু বলার ক্ষমতা নেই।’

দলের মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, এ ব্যাপারে দলীয়ভাবে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে আমরা স্থানীয় নেতাদের কাছ থেকে চারজন সম্ভাব্য প্রার্থীর নাম চেয়ে পাঠাব। পরে দলের প্রেসিডিয়াম অথবা পার্লামেন্টারি পার্টির সভায় প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে।

গত ১৪ জুলাই ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল-সিএমএইচে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান সাবেক রাষ্ট্রপতি এইচএম এরশাদ। তার মৃত্যুর পর গত ১৬ জুলাই রংপুর-৩ আসন শূন্য ঘোষণা করা হয়। সংবিধান অনুযায়ী শূন্য ঘোষিত আসনে ৯০ দিনের মধ্যে উপনির্বাচন করার বাধ্যবাকতা রয়েছে।

যুগযুগান্তর পত্রিকা. নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 Jugjugantor24.com  
Design & Developed BY ThemesBazar.Com