জরুরি নোটিশ:
যুগযুগান্তর পত্রিকার জন্য সারাদেশে জেলা ও উপজেলায় সংবাদ দাতা আবশ্যক।  মোবা: 01842268378 ইমেইল: nskibria2012@gmail.com
‘বড় জুটির খোঁজে থাকবে বাংলাদেশ’

‘বড় জুটির খোঁজে থাকবে বাংলাদেশ’

ক্রীড়া প্রতিবেদক, সিলেট থেকে : ‘ডমিনো এফেক্ট’ প্রথম ইনিংসে বেশ ভালোভাবেই ভুগিয়েছে বাংলাদেশকে। ধারাবাহিকভাবে সাজঘরে ফিরেছেন ব্যাটসম্যানরা। একটি উইকেট পড়লেই ধারাবাহিকভাবে উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ। ব্যাটসম্যানদের লড়াই করার মানসিকতা ছিল না। ছিল না উইকেটে থিতু হওয়ার চেষ্টা।

অবশ্য টেস্টে ব্যর্থতার বৃত্তে দীর্ঘদিন ধরেই ঘুরপাক খাচ্ছে বাংলাদেশ। শেষ সাত ইনিংসে বাংলাদেশের রান দুইশ পেরোয়নি। দেশের মাটিতে শ্রীলঙ্কাকে দিয়ে শুরু। এরপর ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরেও একই চিত্র। সবশেষ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষ সিলেটে প্রথম ইনিংসে অলআউট ১৪৩ রানে।

দলের এ অবস্থায় পরাজয় ঠেকাতে বাংলাদেশকে করতে হবে ৩২১ রান। সোমবার তৃতীয় দিনের শেষ প্রান্তে বিনা উইকেটে ২৬ রান তুলে আত্মবিশ্বাস দেখিয়েছেন দুই ওপেনার লিটন দাস ও ইমরুল কায়েস। তাদের হাত ধরে পরবর্তীতে বাংলাদেশ কতটুকু এগিয়ে যেতে পারে, সেটাই দেখার।

তৃতীয় দিনের খেলা শেষে দলের প্রতিনিধি হয়ে সংবাদ সম্মেলনে আসা কোচ স্টিভ রোডস জানালেন, দল দ্বিতীয় ইনিংসে বেশ আত্মবিশ্বাসী। প্রথম ইনিংসের ব্যর্থতা কাটিয়ে উঠে জয় পেতেও আত্মবিশ্বাসী।
‘আমি মনে করি দলের চাপা আত্মবিশ্বাস আছে। তারা জানে যে ম্যাচ জিততে হলে এই ম্যাচের সর্বোচ্চ রান করতে হবে এবং এটা সব সময় ঘটে না। আমরা দ্বিতীয় ইনিংসে ভালো ব্যাটিং করতে চাই, প্রথম ইনিংসের তুলনায়। আজ দিনের শেষে লিটন ও ইমরুলের ব্যাটিংয়ে খুবই খুশি। তারা ভালো ভিত গড়েছে। তাদের আগামীকালও ভালো করতে হবে।’

টেস্টের দুই দিন বাকি থাকলেও ম্যাচের ফল নির্ধারণ হতে পারে চতুর্থ দিনই। জয় পেতে বাংলাদেশের চাই আরো ২৯৫ রান। ১০ উইকেট হাতে রেখে বাংলাদেশের ব্যাটিংয়ের ধরন কেমন হওয়া উচিত? কোচ বললেন, ‘আমরা দুটি বড় জুটির খোঁজে থাকব। ক্রিজে যারা যায়, ইনিংসের শুরুতেই সবাই নার্ভাস থাকে। কেউ হয়তো সেটা দেখায় না। ভিভ রিচার্ডস যখন ক্রিজে যেত, আপনি হয়তো বলবেন সে নার্ভাস নয়। কিন্তু আমি বাজি ধরে বলতে পারি, তার ভেতরেও কিছু স্নায়ুর চাপ কাজ করত। তবে প্রতিটা বল খেলার সাথে সাথে কাজটা সহজ থেকে সহজতর হয়। আমরা নিজেদের খেলার ওপর জোর দিতে চাই, আমরা এক মুহূর্তে এক বল খেলতে চাইব। এটা করতে পারলে কাজটা সহজ হয়ে যায়।’

‘ব্যাটসম্যানদের মধ্যে অনেকেই ইনিংসের শুরুতে আউট হয়। সেরা ব্যাটসম্যানরাও দ্রুত আউট হয়। আপনি এড়িয়ে যেতে পারবেন না। “ডমিনো এফেক্ট” বড় সমস্যা। যদি আমরা বড় জুটির খোঁজ করি, তাহলে দুইজনকে ক্রিজে থাকতে হবে। তাদের দায়িত্ব ইনিংস বড় করা। দলের এটাই দরকার। পরের উইকেটটি খুব দ্রুত পড়তে পারে। প্রথম বলে আউট হওয়ার অভিজ্ঞতা আমারও আছে’- যোগ করেন রোডস।

যুগযুগান্তর পত্রিকা. নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 Jugjugantor24.com  
Design & Developed BY ThemesBazar.Com