জরুরি নোটিশ:
যুগযুগান্তর পত্রিকার জন্য সারাদেশে জেলা ও উপজেলায় সংবাদ দাতা আবশ্যক।  মোবা: 01842268378 ইমেইল: nskibria2012@gmail.com
ফোকসের সেঞ্চুরির পর মঈনের স্পিনে নাকাল শ্রীলঙ্কা

ফোকসের সেঞ্চুরির পর মঈনের স্পিনে নাকাল শ্রীলঙ্কা

ক্রীড়া ডেস্ক : গলে কখনোই টেস্ট জিততে পারেনি ইংল্যান্ড। দেশের বাইরে টেস্ট জয় নেই দুই বছর ধরে। ইংলিশদের দুটি আক্ষেপ ঘোচানোর দারুণ সুযোগ তৈরি হয়েছে গল টেস্টের প্রথম দুই দিনেই। সিরিজের প্রথম টেস্টের পুরো নিয়ন্ত্রণ সফরকারীদের হাতে।

বুধবার দ্বিতীয় দিনেই দেখা গেছে তিন ইনিংস! সকালে অভিষিক্ত বেন ফোকসের সেঞ্চুরিতে ইংল্যান্ডের প্রথম ইনিংস শেষ হয় ৩৪২ রানে। জবাবে মঈন আলীর স্পিন বিষে নীল হয়ে ২০৩ রানেই গুটিয়ে গেছে শ্রীলঙ্কা। দিন শেষে দ্বিতীয় ইনিংসে বিনা উইকেটে ৩৮ রান তুলেছে ইংলিশরা। ১০ উইকেট হাতে নিয়ে ইংল্যান্ড এগিয়ে ১৭৭ রানে।

আগের দিনের ৮ উইকেটে ৩২১ রানের সঙ্গে দ্বিতীয় দিন আর ২১ রান যোগ করতে পেরেছে ইংল্যান্ড। এর মধ্যে ২০ রানই ফোকসের। জনি বেয়ারস্টোর চোটের কারণে সুযোগ পাওয়া উইকেটকিপার এই ব্যাটসম্যান দিন শুরু করেছিলেন ৮৭ রান নিয়ে।

জ্যাক লিচ যখন নবম ব্যাটসম্যান হিসেবে ফিরলেন দিলরুয়ান পেরেরার ওভারের দ্বিতীয় বলে, তখনো সেঞ্চুরি থেকে ৫ রান দূরে নন স্ট্রাইক প্রান্তে দাঁড়িয়ে ফোকস। এগারো নম্বরে নামা জেমস অ্যান্ডারসন ফোকসকে সেঞ্চুরির সুযোগটা করে দিতে পারবেন কি না, তা নিয়েই শঙ্কা। তবে পেরেরার শেষ চার বল পার করে দেন অ্যান্ডারসন।

পরের ওভারে সুরাঙ্গা লাকমালকে চার হাঁকিয়ে ফোকস পৌঁছে যান ৯৯-এ। এক বল পর আরেকটি বাউন্ডারিতে ছুঁয়ে ফেলেন তিন অঙ্ক। তাতেই নাম লেখান রেকর্ড বুকে।
প্রথম ইংলিশ উইকেটকিপার হিসেবে শ্রীলঙ্কার মাটিতে টেস্টে সেঞ্চুরি করলেন ফোকস। ২০০৭ সালে ম্যাট প্রিয়রের ৭৯ রান ছিল আগের সর্বোচ্চ। অভিষেকে সেঞ্চুরি করা দ্বিতীয় ইংলিশ উইকেটকিপার তিনি, প্রথমজন প্রিয়র। সব মিলিয়ে অভিষেকে সেঞ্চুরি করা পঞ্চম উইকেটকিপার ফোকস। আর ইংল্যান্ডের হয়ে অভিষেকে ফোকসের আগে সেঞ্চুরি করেছিলেন ১৯ জন।
লাকমালের ওই ওভারের শেষ বলে আউট হওয়ার আগে ২০২ বলে ১০ চারের সাহায্যে ১০৭ রানের ইনিংসটি সাজান ফোকস। শ্রীলঙ্কার হয়ে পেরেরা ৭৫ রানে নেন ৫ উইকেট। ৩ উইকেট লাকমালের।

জবাবে ১০ রানেই দুই ওপেনারকে হারায় শ্রীলঙ্কা। দিমুথ করুনারত্নেকে ফিরিয়ে শুরুটা করেছিলেন জেমস অ্যান্ডারসন। আরেক পেসার স্যাম কুরানের শিকার কৌশল পেরেরা। এরপর স্বাগতিকদের বাকি ৮ উইকেটই নিয়েছেন ইংল্যান্ডের তিন স্পিনার মঈন, লিচ ও আদিল রশিদ। যেখানে নেতৃত্ব দিয়েছেন মঈন।

ধনঞ্জয়া ডি সিলভা আর কুশল মেন্ডিস উইকেটে থিতু হয়েও ইনিংস বড় করতে পারেননি। লাঞ্চের আগে ৬৪ রানেই শ্রীলঙ্কা হারিয়েছে ৪ উইকেট। এরপর ৭৫ রানের একটা জুটি গড়েন বর্তমান ও সাবেক দিনেশ চান্দিমাল ও অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস।

চা বিরতির আগে চান্দিমালকে (৩৩) ফিরিয়ে জুটি ভাঙেন রশিদ। আর বিরতির পরই মঈনের শিকার ম্যাথুস (৫২)। এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে ৬৮ ওভারেই শেষ শ্রীলঙ্কার ইনিংস। পরের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে সর্বোচ্চ ২৮ রান করেন উইকেটকিপার নিরোশান ডিকভেলা।

৬৬ রানে ৪ উইকেট নেন মঈন। রশিদ ২২ ও লিচ ৪১ রানে নেন ২টি করে উইকেট। অ্যান্ডারসন ২৬ রানে ও কুরান ১৬ রানে নেন একটি করে উইকেট।

শেষ ঘণ্টায় ১২ ওভার ব্যাটিংয়ের সুযোগ পেয়ে কোনো বিপদ হতে দেননি দুই ইংলিশ ওপেনার ররি বার্নস ও কিটন জেনিংস। ৩৮ রান যোগ করে প্রথম ইনিংসের ১৩৯ রানের লিডটা আরো বাড়িয়েছেন এই দুজন। জেনিংস ২৬ ও বার্নস ১১ রানে অপরাজিত আছেন।

যুগযুগান্তর পত্রিকা. নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 Jugjugantor24.com  
Design & Developed BY ThemesBazar.Com